Mountain View
বিলুপ্তির পথে গরু দিয়ে হাল চাষ


প্রকাশ : আগস্ট ৫, ২০১৬ , ৯:০৪ অপরাহ্ণ
প্রথম সংবাদ ডেস্ক

কলাপাড়া প্রতিনিধি ॥ কলাপাড়া উপজেলার উপকূলীয় চরাঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকায় আগের মত এখন আর লাঙ্গল দিয়ে গরু টানা হাল চাষ দেখা  যায় না। এক সময় বাণিজ্যিকভাবে কৃষক গরু পালন করতো । এছাড়া হাল চাষ করার জন্য কিছু মানুষ গবাদি পশু দিয়ে হাল চাষকে পেশা হিসাবে নিত। নিজের সামন্য জমি টুকুর পাশাপাশি অন্যের জমিতে হাল চাষ করে তাদের সংসারের ব্যয় নির্বাহ হতো। গরু দিয়ে হাল চাষে সময় লাগলেও মালিকরা অপেক্ষা করে হলেও হাল চাষের ব্যবস্থা করত। হালের গরু কিনে দারিদ্র মানুষ জমি চাষ করেই তাদের পরিবারে সচ্ছলতা ফিরে পেত। উপজেলার বালিয়াতলী ইউনিয়নের লেমুপাড়া গ্রামের কৃষক মো. চাঁন মিয়া(ধলা) বলেন, ছোটবেলা হাল চাষের কাজ করতাম। বাড়িতে হাল চাষের বলদ গরু ছিল ২ জোড়া। চাষের  জন্য দরকার হতো বলদ ১ জোড়া, কাঠ লোহার তৈরি লাঙ্গল, জোয়াল, মই, লরি (বাশের তৈরি গরু তাড়ানোর লাঠি), গরুর মুখে টোনা এই লাগতো আমাদের। আগে গরু দিয়ে হাল চাষ করলে জমিতে ঘাস কম হতো। অনেক সময় গরুর গোবর জমিতে পড়ত, এতে করে জমিতে অনেক জৈব্য সার হতো ক্ষেতে ফলন ভালো হত। গরু দিয়ে হাল চাষ করে ছেলে মেয়ের লেখাপড়া ও সংসার মোটামুটি ভালই চলতো। এখন নতুন নতুন মেশিন (ট্রাক্টর) অ্যাইছে, মেশিন দিয়ে এখানকার লোকজন চাষাবাদ করে। মোগো  তো ট্যাহা নাই মেশিন কিন্ন্যা জমি চাষ করার, তাই এহন সংসার চালাতে অনেক কষ্ট হইতাছে।  বাবার সাথে জমি চাষ করতে আসা তুলাতলী স্কুলের পঞ্চম শ্রেনির শিক্ষার্থী মো. আলিফ রিয়ান বলেন, প্রতিদিন সকালে স্কুলে যাই স্কুল থেকে আইয়া বাবার সাথে নেমে পড়ি হাল চাষ করার জন্য। বাবার স্বপ্ন আমি লেখাপড়া করে ভালো  শিক্ষক হই। তাই বাবাকে সহোযোগীতা করে সংসারে অভাব একটু কম হে লেখাপড়ার জন্য বই, খাতা ও কলম ঠিকমত কিনতে পারবো। আমি লেখাপড়া করে বাবার স্বপ্ন পূরন করতে পারবো। তাই কাজের পাশাপাশি লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছি। এব্যাপারে উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো: মজিবর রহমান বলেন, গরুর পরিমান কমে গেছে এ কারনে বর্তমানে ট্রাক্টর দিয়ে হাল চাষ হচ্ছে। এছাড়া গরু দিয়ে হাল চাষ না হওয়ার  কারনে মটি জৈবিক ক্ষমতা হারাচ্ছে। তাই একদিকে যেমন ফলন কমে যাচ্ছে তেমনি রাসায়নিক সারের প্রভাব বেড়েছে। এছাড়া টেক্টরে যেমন খরচ বেশী হয়। কিন্তু গরু দিয়ে হাল চাষে খরচ কম হয়। বহু প্রান্তিক কৃষকের কর্ম সংস্থান হয়।



পুরোন সংবাদ দেখুন

প্রকাশকঃ মোহাম্মাদ রাজীব ।
সম্পাদকঃ মোস্তফা জামান (মিলন)
প্রধান নির্বাহী সম্পাদকঃ এ এম জুয়েল ।
মোবাইলঃ ০১৭১১৯৭৯৮৪৩
prothomsangbadbd@gmail.com

অফিসঃ প্রথম সংবাদ ডট কম
এক্সট্রিম আনলক, ফাতেমা সেন্টার
দোকান নং ৩১৪, ৪র্থ তলা (বিবির পুকুর পশ্চিম পাড়)
৫২৩ সদর রোড, বরিশাল - ৮২০০
বাংলাদেশ ।

© প্রথম সংবাদ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি Design & Developed By: Eng. Zihad Rana
Copy Protected by ENGINEER BD NETWORK