Mountain View
কলাপাড়ায় ৫০ হিন্দু পরিবারের সংবাদ সম্মেলন


প্রকাশ : আগস্ট ২৬, ২০১৬ , ৮:৩৫ অপরাহ্ণ
প্রথম সংবাদ ডেস্ক

কলাপাড়া প্রতিনিধি ॥
৫০ বছরের দখলে থাকা বাড়িঘর ফসলি জমি থেকে উচ্ছেদ করতে একটি প্রভাবশালী মহলের প্রত্যক্ষ মদদে মামলা দেয়া এবং চাষাবাদ বন্ধ করে দেয়ার প্রতিবাদে প্রায় ৫০টি সংখালঘু হিন্দু পরিবারের সদস্যরা শুক্রবার বেলা ১১টায় কলাপাড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এসম্পত্তি দখলে আবার ওই মহল স্থানীয় রাখাইন সম্প্রদায়ের লোকজনকে ব্যবহার করে সাম্প্রদায়ীক সম্প্রীতি নষ্ট করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে এনিয়ে সংঘাতের সৃষ্টি হয়েছে। কলাপাড়া উপজেলার লতাচাপলী ইউনিয়নের মিশ্রিপাড়ায় এক একর ৫১ শতক জমি হাতিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে একদফা সংঘাতের পরে বর্তমানে রাখাইন এবং হিন্দু সম্প্রদায় মুখোমুখি অবস্থান করছে। হিন্দু পরিবারের লোকজন তাদের বসতভিটাসহ ওই জমি রক্ষার দাবিতে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মনোহর চন্দ্র হাওলাদার। তিনি লিখিত বক্তব্যে দাবি করেন, লতাচাপলী মৌজার ১১১৪ নং খতিয়ানের জমিজমা ১৯৪৯ সালে রাখাইন সম্প্রদায়ের মালিকদের কাছ থেকে হস্থান্তরিত হলে তারা কিনে ভোগদখল করে আসছেন। কিন্তু স্থানীয় আকবর ও আলম মিয়া নিঃসন্তান মৃত রাখাইন দম্পতি থয়মফ্রু ও মায়েফ্রু মগনীদের ভুয়া সন্তান ওয়ারিশ দেখিয়ে ১৯৯০ সালে তিনটি দলিল সৃষ্টি করেন। এরপর বিভিন্ন সময় ওই জমি দখলে মরিয়া হয়ে ওঠে। সর্বশেষ এ জমির দখল নিতে গিয়ে রাখাইন সম্প্রদায়ের সঙ্গে হিন্দু সম্প্রদায়ের সংঘাত হয় ১৯ আগস্ট বিকেলে। এ ঘটনায় পরস্পর বিরোধী মামলা করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে অংশগ্রহনকারীরা এঘটনার জন্য স্থানীয় আকবর ও ছাবের হোসেনকে দায়ী করেছেন। এছাড়া কুয়াকাটার সরকার দলীয় এক প্রভাবশালী রাজনীতিক ও নব্য জনপ্রতিনিধির প্রত্যক্ষ মদদে এসব করা হচ্ছে বলে উপস্থিত হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন মনে করেন। তারা এতোটাই ভীতসন্ত্রস্থ যে ওই প্রভাবশালীর নাম উল্লেখ করতে মুখ খোলেন নি। বর্তমানে ৪/৫ কোটি টাকা মূল্যের দেড় একর জমি দখলে এবং পাল্টাদখলে হিন্দু এবং রাখাইন সম্প্রদায়ের মধ্যে ফের সংঘাতের শঙ্কা রয়েছে। অপরদিকে এ জমিতে বসবাসকারী প্রায় ১২টি পরিবার আছেন উচ্ছেদ আতঙ্কে। তারা তাঁদের এ সমস্যা নিরসনে পুলিশ এবং উপজেলা প্রশাসনের আশু হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন। তারা চেয়েছেন তাদের জমিজমা রক্ষাসহ নির্বিঘেœ বসবাসের নিরাপত্তা। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সাবের হোসেন জানান, তিনি এ ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত নন। তাকে জড়িয়ে দেয়া বক্তব্য সম্পুর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। রাখাইনরা জমির মালিক দাবি করছে, যা নিয়ে বিরোধ হয়েছে। এটা রাখাইন এবং হিন্দুদের নিজস্ব ব্যাপার। এনিয়ে আদালতেও মামলা রয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে হিন্দু সম্প্রদায়ের অর্ধশতাধিক নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোর উপস্থিত ছিলেন। মহিপুর থানার ওসি এসএম মাকসুদুর রহমান জানান, বিরোধীয় সম্পতি নিয়ে হিন্দু ও রাখাইন সম্প্রদায়ের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় দু’টি মামলা তদন্তাধীন রয়েছে। নিরাপত্তা নিশ্চিতেও সতর্ক রয়েছেন।



পুরোন সংবাদ দেখুন

সর্বাধিক পঠিত

প্রকাশকঃ মোহাম্মাদ রাজীব ।
সম্পাদকঃ মোস্তফা জামান (মিলন)
প্রধান নির্বাহী সম্পাদকঃ এ এম জুয়েল ।
মোবাইলঃ ০১৭১১৯৭৯৮৪৩
prothomsangbadbd@gmail.com

অফিসঃ প্রথম সংবাদ ডট কম
এক্সট্রিম আনলক, ফাতেমা সেন্টার
দোকান নং ৩১৪, ৪র্থ তলা (বিবির পুকুর পশ্চিম পাড়)
৫২৩ সদর রোড, বরিশাল - ৮২০০
বাংলাদেশ ।

© প্রথম সংবাদ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি Design & Developed By: Eng. Zihad Rana
Copy Protected by ENGINEER BD NETWORK