Mountain View
মেহেন্দিগঞ্জে আওয়ামীলীগ – আওয়ামীলীগ যুদ্ধ


প্রকাশ : মে ৩০, ২০১৭ , ৫:০৪ অপরাহ্ণ
প্রথম সংবাদ ডেস্ক

এ. এম জুয়েল ॥
এক ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জে যুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। দুই পক্ষের আক্রমনে আক্রান্ত হচ্ছে গোটা আওয়ামীলীগ। নষ্ট হতে শুরু করেছে আওয়ামীলীগের ভাবমূর্তি। সাধারন মানুষের মনে সৃষ্টি হচ্ছে নানা প্রতিক্রিয়ার। এক মঙ্গলবারের নির্বাচন আজ বরিশাল আওয়ামীলীগের ঘরে অমঙ্গল বয়ে এনেছে। অভিযোগ উঠেছে ১১জন মানুষকে পুরিয়ে মারার ও । অনেকেই বলছে নিজেদের মধ্যে বিবেধের কারনে আওয়ামীলীগের সুনাম নষ্ট হতে চলেছে। নির্বাচনী উত্তাপ যেন কাটছেই না। আর বরিশাল জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মইদুল ও ছেড়ে দিতে নারাজ। এবার বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের এমপি পঙ্কজ নাথকে সন্ত্রাসী এমপি আখ্যা দিয়ে পঙ্কজ দেবনাথের বর্বর হামলা থেকে বাচঁতে বরিশাল রগরীর অশ্বিনী কুমার টাউন হল সম্মুখে প্রতিবাদ ও প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার কাজির হাট থানার ৬ নং বিদ্যান পুরউিনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য সঞ্জয় চন্দ্র। সঞ্জয় নিজেকে মেহেন্দিগঞ্জ পৌর যুবলীগ নেতা দাবী করে তার উপর এমপি পঙ্কজনাথের হামলার কথা তুলে ধরেন। সঞ্জয় এমপি পঙ্কজনাথকে ভন্ড নেতা আখ্যা দিয়ে বলেন, তিনি নিজের স্বার্থ হাসিলের জন্য কাজ করে। নিজের জন্য ব্যবহার করে শেষ হলে ডাষ্টবিনে ফেলে দেন। তার নির্যাতনের শিকার হয়ে অনেক নেতাকর্মী বাড়ীঘর ছেড়েছে, কেইবা আবার দেশ ও জেলও খাটছে। ৭ পৃষ্ঠার কাগজের অভিযোগ হাজারো। এসময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন , আলমগীর খান, সুমন সরকার, হোসনে আরা বেগম, মিরাজ হোসেন। সুত্র জানিয়েছে বরিশাল জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মইদুলের ইঙ্গিতে সঞ্জয় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে ধরেছে। গত ২০ এপ্রিল হওয়া হামলা ২৯ মে কেন অভিযোগ  এমনটাই প্রশ্ন অনেকের। গত ২৩ মে মঙ্গলবার বরিশালের মহেন্দীগঞ্জ উপজেলার ১১নং চানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আর এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপ-নির্বাচনে মাহে আলম ঢালীকে নৌকা প্রতীক প্রদান করে আওয়ামীলীগ। কিন্তু বরিশাল-৪ আসনের সংসদ সদস্য পঙ্কজ নাথ আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত বাহাউদ্দিন ঢালীকে বিদ্রোহী হিসেবে দাঁড় করান। আর যা নিয়ে শুরু হয় বরিশাল জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মইদুল ও মেহেন্দিগঞ্জ এমপি পঙ্কজনাথের ঘরোয়া যুদ্ধ।  এক পর্যায়ে নির্বানের আগের দিন গত সোমবার ২২ মে বরিশাল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের করে বরিশাল জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মইদুল ইসলাম। আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রার্থীর  ওপর হামলা ও বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষ নেয়ার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, তিনি বলেন, এমপি পঙ্কজ নাথের বর্তমান কর্মকাণ্ড ২০০১ সালের বিএনপির সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডকেও হার মানায়। মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার ১১নং চানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন মঙ্গলবার। উপ-নির্বাচনে মাহে আলম ঢালীকে নৌকা প্রতীক প্রদান করেছে আওয়ামী লীগ। কিন্তু বরিশাল-৪ আসনের সংসদ সদস্য পঙ্কজ নাথ আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত বাহাউদ্দিন ঢালীকে বিদ্রোহী হিসেবে দাঁড় করিয়েছেন এবং প্রকাশ্যে বাহাউদ্দিন ঢালীর পক্ষ নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এদিকে ঐদিনই পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেন বরিশাল-৪ (হিজলা-মেহেন্দীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য পঙ্কজ দেবনাথ। বিকাল ৪টায় মেহেন্দীগঞ্জ প্রেসক্লাবে তিনি এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, বিগত কয়েক মাসে বিভিন্ন ঘটনায় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মইদুল ইসলামের বিরুদ্ধে জনসাধারণ ভীষণ ক্ষুব্ধ হয়ে আছে। তিনি নিজে নিজের মুক্তিযোদ্ধার যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন থাকার পরেও যাচাই-বাছাই কমিটির সভাপতি থাকা অবস্থায় মোটা অংকের লেনদেনের মাধ্যমে অমুক্তিযোদ্ধাকে মুক্তিযোদ্ধা বানানোর চেষ্টা, বাছাইয়ের সময় প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে অসৎ আচরণ করেন। তিন বছর পাতারহাট বাজার খাজনা মুক্ত থাকার পরে নতুন করে খাজনা আরোপে জনগণের দুর্ভোগ, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্য করে ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতাদের বঞ্চিত করে হাইব্রিডদের মনোনয়ন প্রদান, চরাঞ্চলের দরিদ্র মানুষের খেয়া পারাপারে অধিকমূল্যে ইজারা প্রদান ও গ্রহণ।  বিভিন্ন সময়ে ধার নেয়া লাখ লাখ টাকা শোধ না করায় এক সময়ের ঘনিষ্ঠ লোকজন হতাশ ও বিক্ষুব্ধ। মনোনয়ন বাণিজ্য ৪০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলেও শুনেছি। ইউনিয়ন ও উপজেলা কমিটির কোন সভা না করে মনোনয়ন দেন। আমি মূলত একটি রাজনৈতিক মহলের প্রতিহিংসার শিকার। এদিকে নির্বাচনের দিন গত ২৩ মে মঙ্গলবার  বরিশাল জেলা পরিষদে আয়োজিত এক সংবাদ সমোমলনে বরিশাল জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মইদুল ইসলাম বলেন, ২০১৩ সালে বিএনপি জামায়াতের এন্দালনের সময় সরকারী দলীয় সাংসদ পঙ্কজ দেবনাথের নির্দেশে বাস আগুন দিয়ে ১১জনকে পুরিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে মইদুলের এমন অভিযোগ বরিশালের আওয়ামীলীগের রাজনীতিকে লন্ডভন্ড করে তুলেছে। মইদুল জানান, ঢাকার বিহঙ্গ পরিবহন এমপি পঙ্কজনাথের। স্বেচ্ছা সেবকলীগের কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক পঙ্কজ নাথের বাড়ী ও তার নির্বাচনী এলাকা মেহেন্দিগঞ্জে আর জেলা বরিপষের চেয়ারম্যান ও মউদুলের বাড়ীও মেহেন্দিগঞ্জে। তাই মেহেন্দিগঞ্জের রাজনীতি হাতিয়ে নিতে দুইজনই শক্তি প্রয়োগ করে যাচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। ২০১৪ সালের নির্বাচন পূর্ববর্তী শাহবাগে গাড়িতে আগুন দেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে এমপি পঙ্কজনাথ বলেন, যারা অভিযোগ করছেন- তারাই জামায়াত-বিএনপির দোসর, নব্য আওয়ামী লীগ। বিহঙ্গ পরিবহনে অভিযোগকারীদেরই একাধিক গাড়ি রয়েছে। অভিযোগকারীরা বিএনপি-জামায়াতের মুখপাত্র হিসেবে কাজ করছে বলে তিনি দাবি করেন। সদ্য চানপুর ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পরাজয়ের বিষয়ে পঙ্কজ নাথ এমপি বলেন, যারা ২০০১ সালে নির্বাচন পরবর্তী আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর ন্যাক্কারজনক হামলা করেছে- তাদেরই মনোনয়ন দেয়ায় তৃণমূল কর্মীরা ক্ষুদ্ধ হয়েছেন।  সুত্রে জানাযায়পঙ্কজ ও মইদুলের  বিরোধের বহিঃ প্রকাশ ঘটে ২৩ মে অনুষ্ঠিতব্য মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার ১১নং চানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন দিয়ে।



পুরোন সংবাদ দেখুন

সর্বাধিক পঠিত

প্রকাশকঃ মোহাম্মাদ রাজীব ।
সম্পাদকঃ মোস্তফা জামান (মিলন)
প্রধান নির্বাহী সম্পাদকঃ এ এম জুয়েল ।
মোবাইলঃ ০১৭১১৯৭৯৮৪৩
prothomsangbadbd@gmail.com

অফিসঃ প্রথম সংবাদ ডট কম
এক্সট্রিম আনলক, ফাতেমা সেন্টার
দোকান নং ৩১৪, ৪র্থ তলা (বিবির পুকুর পশ্চিম পাড়)
৫২৩ সদর রোড, বরিশাল - ৮২০০
বাংলাদেশ ।

© প্রথম সংবাদ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি Design & Developed By: Eng. Zihad Rana
Copy Protected by ENGINEER BD NETWORK